1. editor@islaminews.com : editorpost :
  2. jashimsarkar@gmail.com : jassemadmin :

আয়কর বিবরণী দাখিল না করলে যা করবেন!

ব্যাক্তি করদাতাদের ক্ষেত্রে আয়কর বিবরণী দাখিলের শেষ দিন হলো ৩০ নভেম্বর। এই দিন বাংলাদেশে এই বছর থেকে আয়কর দিবস হিসেবে পালিত হয়েছে। এর আগে ৩০ সেপ্টেম্বর আয়কর দিবস হিসেবে পালিত হয়ে আসছিলো।

গত বাজেটে অর্থমন্ত্রী প্রথমে ৩০ অক্টোবর আয়কর দিবস ঘোষণা করেছিলেন। প্রতি বছরই কয়েক বার আয়কর বিবরণী দাখিলের শেষ দিন কয়েক দফা বাড়িয়ে থাকেন করদাতাদের অনুরোধ রাখতে গিয়ে। তাই এবার ৩০ নভেম্বর ঠিক করে মনে করিয়ে দেন এবার আর আয়কর বিবরণী দাখিলের সময় বৃদ্ধি করা হবে না।

যারা ৩০ নভেম্বরের মধ্যে আয়কর বিবরণী দাখিল করতে পারবেন না তাদেরকে অতিরিক্ত সময়ের জন্য নির্ধারিত হারে সুদ দিয়ে জমা দিতে হবে। এবং এইবার অর্থমন্ত্রী তার কথা রাখতে পেরেছেন। অর্থাৎ এবার আর সময় বাড়ানো হয় নি।

তবে অর্থমন্ত্রী সুদের কথা বললেও কিছু সুযোগ রয়ে গেছে ইনকাম ট্যাক্স অর্ডিন্যান্স ১৯৮৪-এ। ৭৫(৫)-১ সেকশন অনুযায়ী ব্যাক্তি করদাতা যদি ৩০ নভেম্বরের মধ্যে কোন কারনে আয়কর বিবরণী জমা দিতে না পরেন তাহলে ৭৫(৫)-২ সেকশন অনুযায়ী ডিসিটি-র কাছে সময় চেয়ে আবেদন করতে পারবেন। এবং তিনি চাইলে দুই মাস পর্যন্ত সময় মঞ্জুর করতে পারবেন। এর পরেও যদি কেউ কোন কারনে ব্যর্থ হন তাহলে আরো দুই মাস সময় বৃদ্ধির জন্য আবেদন করতে পারবেন। তবে এক্ষেত্রে সময় বৃদ্ধির জন্য আইজেসিটি-র অনুমোদন লাগবে।

আর যারা ৩০ নভেম্বরের মধ্যে আয়কর বিবরণী জমা দিতে পারেননি এবং সময় বৃদ্ধির আবেদনও করেননি কেবল তাদেরকেই সুদসহ আয়কর বিবরণী জমা দিতে হবে।

এখন প্রশ্ন হলো এই সুদের হার কতো? এবং এই সুদ কিভাবে নির্ণয় করতে হবে? প্রথম প্রশ্নের উত্তর হলো, ইনকাম ট্যাক্স অর্ডিন্যান্স ১৯৮৪-এর ৭৩এ সেকশন অনুযায়ী এই সুদের হার হলো ২%। এবং এই সুদ হবে মাসিক ভিত্তিতে।

ধরুন, আপনি আয়কর বিবরণী জমা দিয়েছেন ২০ ডিসেম্বর। তাহলে আপনার সুদ হবে ৩০ নভেম্বরের পরদিন থেকে অর্থাৎ ১ ডিসেম্বর থেকে ২০ ডিসেম্বর পর্যন্ত।

কিন্তু প্রশ্ন হলো এই সুদ কোন টাকার উপর গণনা করা হবে? ধরুন, আপনি চাকরিজীবী। আপনার আয়কর এসেছে ৪০,০০০ টাকা। প্রতি মাসে টিডিএস রেখে আপনার ব্যাংক অ্যাকাউন্টে বেতন ট্রান্সফার হয়। ধরে নিলাম, বছর জুড়ে ৩০,০০০ টাকা উৎসে কর কর্তন করেছে। তাহলে এনবিআর আপনার কাছে আয়কর হিসেবে পাবে আর ১০,০০০ টাকা। এখন এই ১০,০০০ টাকার উপর আপনাকে ২০ দিনের সুদ দিতে হবে। তাহলে আপনার মাসিক ভিত্তিতে ২০ দিনের জন্য সুদ আসবে ১৩৩ টাকা।

এইভাবে সুদ গণনা করার পর আপনার মোট আয়করের পরিমান হবে ১০,১৩৩ টাকা। এই টাকা আপনি অ্যাকাউন্ট পে চেক বা পে অর্ডার বা চালানের মাধ্যমে জমা দিতে পারবেন। আয়কর বিবরণির সাথে অন্য সময় যে উল্লেখিত কাগজ জমা দিয়ে থাকেন সেগুলোসহ জমা দিলেই আপনার আয়কর বিবরণী দাখিল হয়েছে বলে বিবেচিত হবে।

তবে আমাদের সবারই সচেতন হওয়া উচিত নির্ধারিত সময়ের মধ্যে আয়কর বিবরণী জমা দিয়ে সরকারকে দেশের উন্নয়নে সহায়তা করা। আশার কথা হলো, প্রতি বছরই জনগণের মধ্যে সচেতনতা বাড়ছে যার ফলে আয়কর আদায়ের পরিমান প্রতি বছর বেড়েই চলেছে। এর ফলে আমাদের নিজেদের সক্ষমতা বাড়ছে সাথে সাথে বাজেটের আকারও বড় হচ্ছে।

তথ্যসুত্র: বিডি আইনকানুন ডটকম।

More News Of This Category