1. [email protected] : editorpost :
  2. [email protected] : jassemadmin :

উচ্চ শিক্ষার জন্য বেছে নিতে পারেন জার্মানি যাওয়ার সুযোগ!

জার্মানি ইউরোপের অন্যতম প্রধান শিল্পোন্নত দেশ। এটি ১৬টি রাজ্য নিয়ে গঠিত একটি সংযুক্ত ইউনিয়ন। আয়তনের দিক থেকে জার্মানি ইউরোপের ৭ম বৃহত্তম রাষ্ট্র। উত্তর সাগর ও বাল্টিক সাগরের উপকূলীয় নিম্নভূমি থেকে মধ্যভাগের ঢেউ খেলানো পাহাড় ও নদী উপত্যকা এবং তারও দক্ষিণে ঘন অরণ্যবেষ্টিত পর্বত ও বরফাবৃত আল্পস পর্বতমালা দেশটির ভূ-প্রকৃতিকে বৈচিত্র্যময় করেছে।

জার্মানিতে নগরায়নের হার অত্যন্ত বেশি। বার্লিন দেশটির রাজধানী ও বৃহত্তম শহর। জার্মান ভাষা এখানকার প্রধান ভাষা। জার্মানরা পশ্চিমা সংস্কৃতিতে বহু অবদান রেখেছে। জার্মানিতে বহু অসাধারণ লেখক, শিল্পী, স্থপতি, সঙ্গীতজ্ঞ এবং দার্শনিক জন্মগ্রহণ করেছেন। জার্মানি বিশ্বের একটি প্রধান শিল্পোন্নত দেশ। এটির অর্থনীতি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও জাপানের পরে বিশ্বের ৩য় বৃহত্তম।

যোগ্যতাসম্পন্ন শ্রমিক, উন্নত অবকাঠামো, মূলধনের বৃহৎ মজুদ, দুর্নীতির নিম্নহার ও উচ্চ উদ্ভাবনীক্ষমতা ইত্যাদি বৈশিষ্ট্যসম্পন্ন সোশ্যাল মার্কেট ইকোনমি জার্মানিতে বিদ্যমান। ৩.৫ বিলিয়ন জিডিপি নিয়ে জার্মানি ইউরোপের বৃহত্তম ও বিশ্বের চতুর্থ বৃহত্তম অর্থনীতি। জার্মানি পরিবেশ সচেতন জাতি হিসেবে সারা বিশ্বে পরিচিত। বেশির ভাগ জার্মানরাই বৈশ্বিক উষ্ণায়নের ব্যাপারে সচেতন।

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে জার্মানে পড়তে যাওয়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা বাড়ছে। এর অন্যতম কারণ হচ্ছে, জার্মান বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে রয়েছে বিনা বেতনে উচ্চশিক্ষা অর্জনের সুযোগ ও শিক্ষাবৃত্তির সুবিধা। জার্মান বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর প্রায় ১২% শিক্ষার্থী বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে আগত। যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের পরেই শিক্ষার দিক দিয়ে সেরা এই ইউরোপীয় দেশটি।

উন্নত বিশ্বের দেশগুলোর মধ্যে জার্মানিকে ধরা হয় সবচেয়ে কম খরচে উচ্চ শিক্ষার জন্য অন্যতম পছন্দের দেশ। জার্মানির বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে বিজ্ঞান, বাণিজ্য ও মানবিক সব শাখাতেই উচ্চশিক্ষা ও গবেষণার সুযোগ রয়েছে। জার্মানির উল্লেখযোগ্য কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো হলো, Ludwig-Maximilians-University (LMU) Munich. Technical University of Munich. University of Heidelberg. University of Freibrug. RWTH Aachen University.

যে সব বিষয়ে পড়ানো হয়: জার্মানিতে বর্তমানে ৩৮০টির বেশি বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৭,০০০ বেশি কোর্স করানো হয়। জার্মানির বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে জেনারেল ম্যানেজমেন্ট, ইঞ্জিনিয়ারিং ম্যানেজমেন্ট, ইন্টারন্যাশনাল ল, ইন্টারন্যাশনাল মার্কেটিং, মিডিয়া এন্ড কমিউনিকেশন ম্যানেজমেন্ট, লিডারশিপ এন্ড ম্যানেজমেন্ট, ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস ম্যানেজমেন্ট, ইনফরমেশন টেকনোলজি, এইচআরএম, ইন্টারন্যাশনাল ফিন্যান্স এন্ড অ্যাকাউন্টিং।

ডাটা এনালাইসিস এন্ড ম্যানেজমেন্ট, টেলিকমিউনিকেশন এন্ড ম্যানেজমেন্ট, পলিটিক্যাল সায়েন্স, অ্যাডভান্সড ম্যাটারিয়ালস, অ্যাডভান্সড অনকোলজি, ইন্টারন্যাশনাল হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট, কমিউনিকেশন টেকনোলজি, এনার্জি সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি, ফিন্যান্স, ইন্টারন্যাশনাল হেলথ কেয়ার ম্যানেজমেন্ট, মলিকিউলার সায়েন্স, বিভিন্ন ভাষা বিষয়ে পড়াশোনা, পদার্থবিজ্ঞান, গণিত, কম্পিউটার সায়েন্সসহ প্রকৌশল ও জীববিজ্ঞানের বিভিন্ন বিষয়ে উচ্চশিক্ষা গ্রহণের সুযোগ রয়েছে।

১. উন্নতমানের শিক্ষাব্যবস্থা: জার্মানির শিক্ষাব্যবস্থা খুবই মানসম্পন্ন। বিশেষ করে প্রকৌশল এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি শিক্ষায় দেশটি সারা পৃথিবীতে ব্যাপক সুনাম অর্জন করেছে। একারণে জার্মানিকে “Land of Ideas or Land of Engineers” বলা হয়। দ্য টাইমস হায়ার এডুকেশনের তালিকা অনুসারে, বিশ্বের শীর্ষ ২০০ বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে ১২টিই জার্মানিতে অবস্থিত।

এদেশে মুখস্থ ভিত্তিক পড়াশোনা না করিয়ে ব্যবহারিক পড়াশোনা করানো হয়। এখানের অধিকাংশ বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনার মাধ্যম জার্মান, তবে অনেক কোর্স ইংরেজি মাধ্যমেও পড়ানো হয়। ইংরেজিতে পড়তে চাইলে আইএলটিএস বা টোফেল কোর্স থাকতে হবে। জার্মানিতে আপনি অনার্স, মাস্টার্স, ডক্টরাল বা পিএইচডি ডিগ্রি নিতে পারবেন। এছাড়াও ডিপ্লোমা করার সুযোগও রয়েছে।

অনার্সের কোর্সের মেয়াদ তিন থেকে চার বছর, মাস্টার্স কোর্স এক থেকে দুই বছর এবং পিএইচডি তিন থেকে চার বছর মেয়াদি হয়ে থাকে।জার্মান বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে সাধারণত বছরে ২ বার আবেদন করা যায়। সামার ও উইন্টার এ দুই সেমিস্টারে শিক্ষার্থী ভর্তি করানো হয়।জার্মানিতে উচ্চশিক্ষার জন্য যেতে চাইলে জার্মান ভাষা শিখে নিলে আপনার জন্য ভালো হবে। কারণ জার্মান মানুষের সাথে ভালোভাবে মেলামেশা করা এবং চাকরির জন্য জার্মান ভাষার প্রয়োজন পড়ে।

২. স্কলারশিপের সুযোগ: জার্মানিতে শিক্ষার্থীদের জন্য সরকারি ও বেসরকারি বেশ কয়েকটি স্কলারশিপের সুবিধা রয়েছে। এর মধ্যে ডাড স্কলারশিপ অন্যতম। এছাড়াও অন্যান্য স্কলারশিপগুলোর মধ্যে রয়েছে, ইরাসমুস প্লাস, আইনস্টাইন ইন্টারন্যাশনাল ফেলোশিপ, হামবোল্ট রিসার্চ ফেলোশিপ, হেনরিখ বোল স্কলারশিপ, কোনার্ড অ্যাডেনাওয়া স্টিফটুং স্কলারশিপ, কুর্ত হ্যানসেন সাইন্স স্কলারশিপ ইত্যাদি। ভর্তি ও স্কলারশিপ সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্যের জন্য সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে ভিজিট করতে পারেন।

৩. কাজের সুযোগ: জার্মানিতে বিদেশি শিক্ষার্থীদের সপ্তাহে ২০ ঘণ্টা কাজের অনুমতি দেয়া হয়ে থাকে। তবে গ্রীষ্মকালে তিনমাস বন্ধ থাকে, তখন চাইলে ফুল টাইম কাজ করতে পারবেন।

৪. জীবনযাত্রা খরচ কম: ইউরোপের অন্যান্য দেশের তুলনায় জার্মানিতে জীবনযাত্রার খরচ কম। এছাড়াও একজন শিক্ষার্থী হিসেবে আপনি কিছু কিছু ক্ষেত্রে বিশেষ ছাড় পাবেন। বিভিন্ন বিনোদনমূলক প্রতিষ্ঠান, যেমন: থিয়েটার, জাদুঘর, অপেরা হাউজ, ও সিনেপ্লেক্সে আপনার বিশ্ববিদ্যালয়ের আইডি কার্ড দেখিয়ে বিশেষ ছাড় উপভোগ করতে পারবেন।

৫. বিনা বেতনে বা স্বল্প বেতনে পড়াশোনা করার সুযোগ: জার্মান সরকার তাদের বাজেটের একটি বড় অংশ শিক্ষার পিছনে ব্যয় করে থাকে। তাই এখানে বিনামূল্যে বা তুলনামূলকভাবে স্বল্প খরচে ভালো মানের শিক্ষা লাভ করা যায়। প্রায় সকল জার্মান বিশ্ববিদ্যালয় সরকারের পক্ষ থেকে অনুদান পেয়ে থাকে।

জার্মান বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে সাধারণত শিক্ষার্থীদের কোনো প্রকার টিউশন ফি দিতে হয় না, ক্ষেত্র বিশেষ লাগলেও সেটা খুবই নগণ্য। তবে ভর্তির সময় রেজিস্ট্রেশন ও আপ্লিকেশন ফি বাবদ কিছু টাকা দিতে হবে। কিন্তু বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় এবং কিছু কোর্সের ক্ষেত্রে টিউশন ফি দিতে হয়, তবে তা ইউরোপের অন্যান্য দেশের তুলনায় অনেক কম।।

৬. একটি নিরাপদ দেশে বাস করতে পারবেন: জার্মানি বিশ্বের নিরাপদ দেশগুলোর মধ্যে একটি। বিশ্বের নিরাপদ দেশের তালিকায়, জার্মানি ১৩তম স্থান অর্জন করেছে। এদেশের পুলিশবাহিনী জনগণের সার্বিক নিরাপত্তা প্রদানে সর্বদা তৎপর থাকে।

৭. ইউরোপের প্রাণকেন্দ্রে বসবাস: জার্মানিতে বসবাস করা মানে ইউরোপের কেন্দ্রে বসবাস করা, কারণ এদেশ থেকে ইউরোপের অন্যান্য দেশগুলো একদম কাছাকাছি। কোনো প্রকার ভিসা ছাড়াই আপনি প্যারিস, কোপেনহেগেন, হেগ, ব্রাসেলস, জুরিখ ইত্যাদি আকর্ষণী স্থানে বেড়াতে যেতে পারেন। মাত্র দুই তিন ঘণ্টার প্লেন অথবা বাসে ভ্রমণ করে আপনি পৌঁছে যেতে পারবেন পার্শ্ববর্তী দেশগুলোতে। তথ্যসূত্র: ইন্টারনেট।

More News Of This Category