1. editor@islaminews.com : editorpost :
  2. jashimsarkar@gmail.com : jassemadmin :
সফলতার গল্প :

কি ভয়ানক চাপ, বাপরে বাপ!

বুঝদার পাঠক শিরোনাম দেখেই বুঝছেন, কী ভয়ানক চাপের মধ্য দিয়ে যাচ্ছি আমরা। নিম্নচাপ চাপ শুধু নয়, উচ্চচাপ, পার্শ্বচাপ থেকে শুরু করে এহেন চাপ নেই, যাপিতজীবনে আমাদেরকে যা স্পর্শ করেনি। চাপ কোত্থেকে আসে! টেনশান বা দুশ্চিন্তা থেকে। ইনটেনশান থাক বা না-থাক, কোনো কোনো সময় টেনশান আপনাকে ঘিরে ধরবেই। আবার কেউ কেউ আছেন যারা সেই গানের মতো— আমি দুঃখ পেতে ভালোবাসি। মানে কিছু একটা চাপ না থাকলে কেমন খালি খালি লাগে, নিজেকে বড্ড ‘অনাথ’ বলে মনে হয়!

এই দেখুন না, আমার কলিগ হাসিব— কেউ একজন বলল, বুঝলে হাসু, বস তোমার উপর ভয়ানক খেপে আছে। ব্যস, অমনি চাপ শুরু হয়ে গেল হাসিবের। অকারণেও চাপযুক্ত হই কেউ কেউ। নিকিতার কথাই ধরুন, সে সদ্য প্রেমে পড়েছে। পত্রিকায় ফিচার— প্রেমিকের মন খারাপ হলে কী করবেন! ব্যস, এটুকু পড়েই তার জীবনে চাপ এসে গেল। কেন কেন, মন খারাপ শুধু প্রেমিকের— প্রেমিকার হতে পারে না! পেপারে কেন এমন একপেশে খবর ছাপা হলো! এই নিয়ে সে পুরো শহর তোলপাড় করে ফেলল। বাস্তবে যা হলো, প্রেমিক জাফরের বুকের চাপ বাড়লো।

যাপিত জীবনে টুকটাক টেনশান থাকতেই পারে। কিন্তু চাপ নিয়ে বাড়াবাড়ি কিংবা বেহালার ছড়ের মতোন ‘হারপিঙ’ করা যাবে না। তাতে চাপ আরো জেঁকে বসবে, চাই কি আপনার বাপ-ঠাকুর্দার কথাও মনে করিয়ে দেবে। টাকায় যেমন টাকা আনে, তেমনি চাপকে সামাল দিতে না পারলে নতুন কোনো চাপ এসে যুক্ত হবে।

সেদিন মাখনের দুষ্টুবন্ধু হালকা চালে বলল, ঘরে সুন্দরী বউ, তুমি থাকো অফিসে। বউ কই যায়, খোঁজ-খবর রাখো? মামুলি কথা। স্রেফ মজা করার জন্যই বলা। কিন্তু তাতে ফল হলো মারাত্মক। মাখনের মাখোমাখো সুখের পায়রা নিমিষে ফুড়ুত। আরে তাই তো, লাবণ্য সারাদিন কী করে! আমাকে একটা ফোনও তো করে না। তার মানে ও বিজি থাকে। কিন্তু কী নিয়ে! মাখন ভাবতে বসলো। যত ভাবে ততই বুকে ওর চাপ বাড়ে।

টাকাকড়ি বেশি হলেও চাপের পাল্লা ভারী হয়। সাধে কি বলে, অর্থই অনর্থের মূল। কিংবা মানি ইজ নট দ্য প্রব্লেম, মানি ম্যানেজমেন্ট ইজ দ্য মেইন প্রবলেম। কথা সত্যি। দুটো টাকা কামালে তাই নিয়ে মেলা ঝকমারি। চাপের একশেষ। আয় করলেই আয়কর গুনতে হয়। তার মানে একজন উকিল ধরো, তার পিছেপিছে ঘোরো। একটু আরাম করবেন, তারও উপায় নেই। আরাম মানে ঠ্যাঙের উপর ঠ্যাঙ তুলে খাওয়া, মানে কাজের লোক চাই। তার বয়স অল্প হলে ড্রাইভারের সাথে ভাগবে, মেয়ের বাপ এসে ধরবে আপনাকে। কাজের লোক বয়স্ক হলে টিকটিক করে মেলা কথা শোনাবে। খবরদারি করবে, তাতেও চাপ। সত্যি, সংসারজীবনে চাপের কোনো মাফ নেই।

এই ভেবে শেষে কিনা বন্ধু আমার বিয়েই করলো না। সে চিরকুমার থাকবে, ঠিক করেছে। কিন্তু তাতেও চাপ কম নয়। সবাই বলে, এই যে চিরকুমার, তুমি তো একা। একলা ঘরে মরে পড়ে থাকলেও তো কেউ টের পাবে না। খাবার না হয় টুপাইস হোটেলে গিয়ে খেলে, কিন্তু জ্বরে পড়লে কপালে জলপট্টি কে দেবে, অভাগীর বেটি! আপনজনের প্রচুর পরামর্শ আর বেশুমার চাপ সইতে না পেরে শেষে বন্ধুটি আধবুড়ো বয়সে বিয়ে করবে ঠিক করলো। কিন্তু ও জানে না, হাজারখানেক গর্দভ মরলে তবে একজন বিবাহিত পুরুষের আবির্ভাব ঘটে। দাম্পত্যজীবনে চাপ কিছু কম নয়!

একবার এক হাতুড়ের সাথে আলাপ হলো। পাসটাস না হলেও হাতুড়ের হাতযশ আছে, রোগীপত্তরও বেশ হয়। বলল, চাপ নিয়ে ভাববেন না, চাপের গলা চেপে ধরুন বা আপসে চাপ গিলে ফেলুন। দেখবেন, চাপটাপ সব ফিনিশ! বুদ্ধিটা মন্দ নয়। কোনোকিছু নিয়ে বেশি ভাবলেই চাপ হয়, তারচে বরং ভুলে থাকুন, নিস্তার মিলবে। বা না-জানার ভান করুন। এ জন্যই বোধ হয় বলে, ইগনোরেন্স ইজ ব্লেস।

কিন্তু ওটা যদি নিম্নচাপ হয়, আর আশপাশে যদি জুতসই শৌচাগার না থাকে তখন! ভেবে দেখলাম চাপ জিনিসটাই বড্ড বিটকেলে। বিবমিষা থেকে ঊর্ধ্বচাপ, বদহজম থেকে নিম্নচাপ। যদিও বাহ্যিক নয় জৈবিক, তা হলেও হেলাফেলার নয়। অযথা চাপ লেনেঅলা আর চাপ দেনেঅলা উভয়েই পরিত্যাজ্য। জীবনটা ভাই হাসি-কান্না সুখ-দুঃখের জগাখিচুড়ি, মিছে চাপ কেন নেবেন।

অফিসে উপরঅলা শাসাচ্ছে, তাকে শাসাতে দিন। কাজের চাপ সইতে না পারলে একখিলি মশলাদার পান মুখে পুরে শবাসনে ডুবে যান। সংসার জ্বালাচ্ছে, চাপ নেবেন না। ঘরের চৌকাঠ মাড়িয়ে প্রকৃতির মাঝে ছড়িয়ে দিন নিজেকে। এলোমেলো হাঁটুন, দশ টাকার বাদাম কিনে ভাঙুন আর টুকুস করে মুখে দিন। দেখবেন জীবনে আর কোনো চাপ নেই। সব কেমন ফকফকা!

রম্য লেখক: অরুন কুমার বিশ্বাস
তথ্যসূত্র: ইত্তেফাক ডটকম।

More News Of This Category