1. [email protected] : editorpost :
  2. [email protected] : jassemadmin :

চাকরিজীবীরা সহজে আয়কর রিটার্ন জমা দিতে!

আপনি কি নতুন করদাতা? আপনার আয় কি করযোগ্য না করমুক্ত? রিটার্ন জমা দেয়া নিয়ে টেনশনে আছেন? উত্তর যদি হ্যাঁ হয়, তবে বলবো, বাড়তি টেনশন নেয়ার দরকার নেই। একটু কষ্ট করে আয়কর মেলায় গেলেই পেয়ে যাবেন সোজাসাপ্টা পথ।

রাজধানীর অফিসার্চ ক্লাবে রিটার্ন জমা দিতে আসেন স্কয়ার হাসপাতালের এক কর্মী শোহরাব হোসেন। তিনি বলেন, আমি এই প্রথম রিটার্ন জমা দিতে এসেছি। এতদিন ভাবছিলাম অনেক ঝক্কি ঝামেলা। কিন্তু আসার পর দেখছি সবাই হেল্পফুল। আমি মনে করি, বাড়তি টেনশন নেয়ার কোনও দরকার নেই।

কিভাবে রিটার্ন জমা দিলেন- এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, অফিসার্স ক্লাবে ঢুকেই তথ্যানুসন্ধান সেন্টার খোঁজ নিলাম। বললাম আমি নতুন করদাতা। কোথায় যেতে হবে? হেল্প সেন্টার থেকে উত্তর- আপনি একটু সোজা গিয়ে হাতে ডানে ৩ নং তাবুতে যাবেন এবং সেখান থেকে রিটার্ন দাখিলের ফরম নিবেন।

‘তথ্যানুসন্ধানের কথামতো সেখানে গিয়ে ফরম নিলাম। দেখলাম- মাঝখানে কয়েকটি টেবিল পাতানো। প্রতি টেবিলের চারপাশে চেয়ারে বসে সবাই লিখছেন। মানে ফরম পূরণ করছেন।’

কিন্তু ফরমে কী লিখলেন, বা আপনার কত টাকা আয়, ব্যয় বা আপনি করযোগ্য কিনা বা কত টাকা কর দিতে হবে? এসব তথ্য কোথা থেকে পেলেন?

‘সহজ উত্তর- চারপাশে প্রায় ২ থেকে ৩ ডজন হেল্প সেন্টার বানিয়ে সেখানে ২ থেকে ৩ জন করে রাজস্ব কর্মকর্তা এসব হিসাব দিয়ে যাচ্ছেন। তারা হিসাব করে জানিয়ে দিচ্ছেন, কত টাকা কর হলো, ফরম পূরণের প্রতিটি ধাপ।’

সেখান থেকে মূলত তথ্য নিয়ে আয়কর রিটার্ন দাতারা তা পূরণ করছেন। সবকিছু পূরণ শেষ হলে তারাই নির্দেশনা দিয়ে দিচ্ছেন এরপর কোথায় যেতে হবে।

শোহরাব বলেন, আমি নতুন করদাতা, আমার আয়ও করমুক্ত। এজন্য আয়কর রিটার্ন দেয়া বেশি সহজ হয়েছে। রিটার্নে আয়-ব্যয়ের তথ্য দিয়ে তা জমা দিয়েছি। এরপর সেখান থেকে আমার জমার রশিদ নিয়েছি।

রিটার্ন জমা দিলেন কোথায়? বেসরকারি এই কর্মজীবী বলেন, আয়কর রিটার্ন পূরণের পর তা জমা দিতে হয়। এজন্য কর সার্কেল অনুযায়ী আয়কর মেলার বিভিন্ন বুথ রাখা হয়েছে। করমেলার উত্তর দিকের ভবনের নিচতলা, দুইতলা কর অঞ্চল ভিত্তিক বুথ করা হয়েছে। তাবুতে ফরম পূরণের পর মেলায় কর্মরত ব্যক্তিদের জিজ্ঞাসা করলেই জানিয়ে দেবে।

সংশ্লিষ্ট সব কাগজপত্র নির্দিষ্টি বুথে জমা দিলেই সেখান থেকে সিলসহ আপনার জমার রশিদ দেবেন সংশ্লিষ্ট কর কর্মকর্তা। সঙ্গে আয়কর মেলা- ২০১৮ লেখা একটি পাটের ব্যাগ ফ্রি। তাতে থাকবে একটি আয়কর নির্দেশিকা, পানির বোতল, একটি বিস্কুটের প্যাকেট, লজেন্স ও একটি কলম।

রিটার্ন জমা দেয়ার ক্ষেত্রে ভুলবেন না
রিটার্ন জমা দেয়ার আগে আপনি পূরণ করা ফরমটি ফটোকপি করে নিতে পারেন। দায়িত্বরত এক কর কর্মকর্তা জানান, জমা দেয়া ফরম ও কাগজপত্রে একটি কপি আপনি কাছে রেখে দেবেন। এজন্য একটা ফটোকপি করে নেয়া ভালো। এটা আপনাকে আগামী বছর তথ্য পূরণে সহায়তা করতে পারেন। এমনকি সেখানে কি কি তথ্য দিয়েছেন, সেটারও প্রয়োজন হতে পারে। তাই এটা করতে ভুলবেন না। তবে ফটোকপি করার বাধ্যবাধকতা নেই।

রিটার্ন ফরমের সঙ্গে কি কি জমা দিতে হলো?
আমি রিটার্নের সঙ্গে আমার টিআইএন সনদ, বেতন বিবরণী, ব্যাংক বিবরণী, ডিপিএস বিবরণী ও জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি জমা দিয়েছি। সঙ্গে এক কপি ছবি।

পুরো প্রক্রিয়া শেষ করতে কত সময় লাগলো?
যেহেতু আমার আগে এ ধরনের অভিজ্ঞতা নেই। তাই সময় একটু বেশি লেগেছে। একই কাজের জন্য হয় তো দুই দুইবার করে বুঝতে হয়েছে। তবুও বলবো- কম সময়ের মধ্যেই শেষ করেছি। পুরো কাজ এক ঘণ্টার মধ্যে শেষ হয়েছে।

যারা সেবা দিচ্ছেন, তাদের বিরুদ্ধে কোনও অভিযোগ আছে?
শোহরাব বলেন, কোনও অভিযোগ নেই, সবাই এখানে কিছু জিজ্ঞাসা করলেই বলে দিচ্ছেন। তবে একটা বিষয়ে একটু ত্রুটি মনে হয়েছে। আর সেটা হলো- যারা কর কর্মকর্তা বা হিসাব-নিকাশ বুঝিয়ে দিচ্ছেন, তারা যদি সেবা দেয়ার সময় একটু ফোনে কথা বলা কমিয়ে দিতেন, তবে

সেবা আরও দ্রুত পাওয়া যেতো।
শুধু নতুন আয়করদাতা নয়, যারা পুরানো বা যারা করেরযোগ্য তারাও পাচ্ছেন এ ধরনের সেবা। এজন্য এক নম্বর তাবুতে প্রায় কয়েকডজন ব্যাংক বুথ স্থাপন করেছে। শেয়ারবাজার, সঞ্চয়পত্র বা বিনিয়োগ সংক্রান্ত সেবাও মিলবে ২ নম্বর তাবুতে।

গত মঙ্গলবার রাজধানীসহ সারাদেশে এই মেলা শুরু হয়েছে। রাজধানীতে আগামী ১৯ নভেম্বর পর্যন্ত এই মেলা চলবে। প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে শুরু হয়ে চলবে বিকেল ৫টা পর্যন্ত।

More News Of This Category