1. editor@islaminews.com : editorpost :
  2. jashimsarkar@gmail.com : jassemadmin :

দীর্ঘস্থায়ী সাফল্যের জন্য প্রয়োজন সততা ও ন্যায়পরায়ণতা!

দক্ষিণ এশিয়ার প্রতিবেশী দেশগুলোর মধ্যে বেকারত্বের হার বাংলাদেশেই বেশি। বিশাল বেকার জনগোষ্ঠী তৈরি হওয়ার পেছনে মূল কারণগুলোর একটি হলো উদ্যোক্তার অভাব। উদ্যোক্তা হতে টাকার পাশাপাশি দরকার মেধা, শ্রম, বুদ্ধি আর অদম্য ইচ্ছাশক্তি। সফল উদ্যোক্তা হওয়ার পেছনে কাজ করে অনেক বিষয়।

এর মধ্যে একটি হলো কর্মপরিকল্পনাগুলোর সঠিক বাস্তবায়ন। তাহলে কি কি কাজ করলে একজন সাধারণ মানুষ হতে পারবেন একজন সফল উদ্যোক্তা? এই ব্যাপারগুলো আপনাদের সামনে তুলে ধরতেই এই লেখা। লক্ষ্য অর্জনে যথেষ্ট আগ্রহী হতে হবে: সাফল্য অর্জনের জন্য যদি তীব্র পরিমাণে উৎসাহ-উদ্দীপনা কাজ না করে, তবে সেই কাজ যথা সময়ে সঠিকভাবে সম্পন্ন হয় না।

এক সময়ে শুধু একটি কাজেই মনোযোগ দিন: আপনি যখন যেটাই করছেন, সেটাতে পূর্ণ মনোযোগ দিন। দিনের শুরুটা করুন সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজে মনোযোগ দিয়ে। ভালো লাগার ক্ষেত্র খুঁজুন ও ধৈর্য ধারণ করুন: নিজের ভালো লাগার ক্ষেত্র খুঁজে বের করুন। যে কাজ করে আনন্দ পাবেন, সে কাজটি করলে দিনশেষে তৃপ্ত হতে পারবেন। সে ধরনের একটি ক্ষেত্রে নিজের সৃষ্টিশীলতাকে ঢেলে দিন।

ধৈর্য ধারণ করাটা অত্যন্ত জরুরি: কোনো কিছু শুরু করতে গেলে প্রথমে ভুল হবেই। ভুল থেকে শিক্ষা নিতে হবে। আবার উঠে দাঁড়ানোর মতো মানসিক শক্তিও থাকতে হবে। কঠোর পরিশ্রম করুন: কঠোর পরিশ্রম দ্বারা ভাগ্যের পরিবর্তন করতে পারলেই হাতে ধরা দেবে সাফল্য। একজন সফল উদ্যোক্তা সব কাজে নিজের সর্বোচ্চটুকু দেয়।

নিজের উপর বিশ্বাস স্থাপন করুন: কোনো সিদ্ধান্ত নেয়ার পূর্বে নিজের বিবেককে প্রশ্ন করুন। নিজেকে সম্পূর্ণ বিশ্বাস না করলে আপনার সিদ্ধান্তগুলো যথার্থ হবে না।: নমনীয় হন তবে লক্ষ্য অর্জনে অটল থাকুন: যদি আপনি দৃঢ়চিত্তে বিশ্বাস করেন যে পরিবর্তন আনা উচিত তাহলে তা অবশ্যই করবেন। আবার যে বিষয়গুলোতে নমনীয় হলে আপনার লক্ষ্য অর্জনের সম্ভাবনা, সেই বিষয়গুলোকে চিনতে পেরে নমনীয় হতে হবে।

টিমের উপর নির্ভর করতে শিখুন: যেসব বিষয়ে অন্যান্য দক্ষ মানুষের সাহায্য লাগবে সেই বিষয়গুলো খুঁজে বের করতে হবে। বাস্তবায়ন নিশ্চিত করুন: পরিকল্পনার পেছনে খুব বেশি সময় অপচয় না করে বাস্তবায়নে নেমে পড়ুন। এতে আপনার সফল হওয়ার সম্ভাবনা বাড়বে।সততা এবং ন্যায়পরায়ণতা প্রদর্শন করুন: দীর্ঘস্থায়ী সাফল্যের জন্য যে দুটি গুণ প্রয়োজন তা হচ্ছে সততা এবং ন্যায়পরায়ণতা।

প্রতিদান দিতে শিখুন: আপনি যখন সফলতার দ্বারপ্রান্তে থাকবেন তখন খেয়াল করে দেখবেন অনেক মানুষ আপনার এই সফলতার পিছনে অবদান রেখেছে। তাই তাদের এই অবদানের প্রতিদান হিসেবে যখন যাকে পারবেন তাকেই সাহায্য করবেন। তথ্যসূত্র: ইন্টারনেট।

More News Of This Category