1. editor@islaminews.com : editorpost :
  2. jashimsarkar@gmail.com : jassemadmin :

ব্যবসায়িক সম্পর্ক শেষ করার আগে যা করবেন

দীর্ঘদিন একটি ব্যবসার সাথে জড়িত থাকলে অনেক বিষয় নিয়েই কাজ করা হয়। একে অপরের সাথে গড়ে ওঠে সম্পর্ক। কিন্তু যদি কোনো কারণে সেই ব্যবসায়িক সম্পর্কও একদিন শেষ করতে হয়? হুট করেই তো আর এমন সিদ্ধান্ত নিয়ে নেওয়া যায় না। তার আগে চাই কিছু প্রস্তুতি। চলুন জেনে নিই সে সম্পর্কে কিছু পরামর্শ।

পার্টনারশিপ চুক্তি পড়ে নিন ভালো করে: পার্টনারশিপে যখনই ব্যবসা শুরুর কথা ভেবেছেন তখন নিশ্চয়ই কাগজে কলমে কোনো চুক্তি করেছেন। সেগুলো বের করে ভালো করে পড়ে নিন। দেখে নিন কোন কোন বিষয়গুলো উল্লেখ করা আছে। পার্টনারশিপ না রাখতে চাইলে কী কী করণীয় সেগুলো ভালো করে জেনে নিন।

যদি চুক্তিতে লেখা থাকে পার্টনারশিপ শেষ করতে চাইলে দুইপক্ষেরই মতামত লাগবে তাহলে অপর পক্ষের সাথে সেটি নিয়ে আলোচনা করুন। আপনার পরিকল্পনার বিস্তারিত তাকে জানান। ব্যবসায়িক সম্পর্ক শেষ করার আগে পার্টনারশিপ চুক্তি পড়ে নিন ভালো করে যদি সরাসরি কোনো চুক্তি না থাকে তবে ব্যবসায় ব্যবহৃত সকল কিছুর সমান সমান ভাগ করুন। আর্থিক সকল লেনদেন দুই পক্ষের মাঝে সমভাবে বন্টন করুন।

নজর দিন আর্থিক অবস্থায়: দীর্ঘদিন ব্যবসা তো করলেন। এবার সেই ব্যবসা যখন বন্ধ করে দেবেন তখন কিন্তু হুট করেই কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া যাবে না। ব্যবসার জন্য সকল আর্থিক অবস্থার দিকে নজরদারি করুন। ব্যবসায় ব্যবহৃত বাড়ি, গাড়ি, দোকান সবকিছুর তথ্য নিন। খেয়াল করে দেখুন, কোনো ক্লায়েন্টের কাজ বাকি রয়েছে কিনা। ব্যবসা বন্ধ করার আগে সকল কাজ সঠিকভাবে সম্পন্ন করে নিন।

আলোচনা করুন: যখনই আপনি ব্যবসা থেকে আলাদা হয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তখনই বিষয়টি নিয়ে পার্টনারের সাথে আলোচনা করুন। হতে পারে সে এমনটি কখনোই ভাবেনি। বেশ অবাক হয়ে আপনার সাথে কিছুটা খারাপ আচরণও করে ফেলতে পারে। ঠিক এই মুহূর্তেই আপনাকে শান্ত থেকে পরিস্থিতি সামলাতে হবে। তার সাথে বসে ঠাণ্ডা মাথায় বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করুন। কেন আপনি এমন সিদ্ধান্ত নিতে চাচ্ছেন তার সবটুকু তাকে বুঝিয়ে বলুন।

পার্টনারশিপে থাকছেন না এমন চুক্তিতে সই করুন: একসাথে যখন অনেকদিন ব্যবসা করেছেন তখন কিন্তু আপনার কাছেও বেশ কিছু দায়িত্ব ছিল। প্রতিষ্ঠানের নানা সিদ্ধান্ত আপনি নিয়েছেন। এতদিন পর যখন এই কাজ থেকে আপনি চলে যাবেন অবশ্যই সব দায়িত্ব থেকে অবসর নিয়েই আপনাকে যেতে হবে। তাই একটি চুক্তিতে সাইন করুন যেখানে এইসব তথ্যাদি লেখা থাকবে। চাইলে উকিলের সাহায্যও নিতে পারেন। পার্টনারশিপ থেকে বের হয়ে আসলে চুক্তি সই করে নেয়াও জরুরি;

আনুষ্ঠানিকভাবেই পার্টনারশিপ শেষ করার চুক্তি করুন: পার্টনারশিপ তৈরির সময় যে সকল নিয়মের কথা বলা হয়েছিল সেগুলো মেনেই চুক্তি শেষ করুন। আনুষ্ঠানিকভাবেই শেষ করুন সব। ক্রেডিট কার্ড বাতিল করুন: যদি পার্টনারশিপে কোনো ক্রেডিট কার্ড থাকে তবে সেটি বন্ধ করে দিন। আপনি নিশ্চয়ই চাইবেন না যৌথ ক্রেডিট কার্ড থেকে পরবর্তীতে আপনি কোনো ঋণের মাঝে পড়ে যান! ব্যবসায়িক সম্পর্ক থেকে বের হওয়ার সময় ক্রেডিট কার্ডটি বন্ধ করে দিন, যে কোম্পানি থেকে কার্ড করেছিলেন তাদের সাথে যোগাযোগ করে পার্টনারের উপস্থিতিতেই কার্ড বন্ধ করে দিন।

শোধ করুন সকল ঋণ: পার্টনারশিপ শেষ করে দেওয়া মানে এই নয় যে আজ বললেন আর কালই সেটা কার্যকর হয়ে গেলো! এই বিষয়ে আগে থেকে কিছু প্রস্তুতি প্রয়োজন। খুঁজে দেখুন কোনো প্রতিষ্ঠানের কাছে কোনো ঋণ আছে কিনা। যদি থাকে, তবে যাওয়ার আগে অবশ্যই সেগুলো শোধ করে দিতে হবে।

সঠিকভাবে অর্থ প্রদান: ঋণ শোধ করার পর খোঁজ নিন পার্টনার বা কোনো কর্মী আপনার কাছে কোনো অর্থ পান কিনা। তবে তাদের সকল পাওনা মিটিয়ে দিন সঠিকভাবে। সম্পত্তি ফেরত: যদি এমন হয় ব্যবসা সংক্রান্ত কাজে আপনি কিছু জিনিস অন্য কোথাও থেকে এনেছিলেন তবে অবশ্যই সেগুলো ফেরত দিতে হবে যথাযথ জায়গায়। আর যদি উভয়পক্ষ মিলে সবকিছু কিনে থাকেন তবে সেগুলো বিক্রি করে যা অর্থ আসবে সমভাবে ভাগ করে নিতে হবে।

কলুষতা যেন না আসে: হতেই পারে ব্যবসার কারণে দুই পক্ষের মাঝে এমন কিছু ঘটল যার কারণে ব্যবসায় পার্টনারশিপ ছেড়ে দিতে হচ্ছে। কিন্তু তার মানে এই নয় যে, অপর পক্ষের জন্য মনে আপনি তিক্ত ভাব রাখবেন। ভালো যে সময়টুকু কাটিয়েছেন সেটি নিয়ে ভাবুন। ব্যবসায় অংশীদারিত্ব শেষ মানেই আরেকজনকে খারাপ ভাবার কিছু নেই। নিজের বিচক্ষণতা আর প্রতিষ্ঠানের ভালোর জন্য সকল খারাপ চিন্তা মন থেকে সরিয়ে নতুন একটি দিন শুরু করুন।

উদযাপন করুন: চলে যাওয়ার মুহূর্ত সব সময় কঠিন। একসাথে অনেকদিন একই জায়গায় কাজ করার পর সে জায়গা, মানুষের জন্যও খারাপ লাগবে এটাই স্বাভাবিক। তবু এগিয়ে যেতে হলে এমন কিছু কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে হয়। তাই মন খারাপের কথা না ভেবে চলে যাওয়ার সময়টিকে উপভোগ করুন, সম্ভব হলে উদযাপন করুন। পার্টনারকে নিয়ে বাইরে চলে যেতে পারেন লাঞ্চ অথবা ডিনারের জন্য। সেখানে গিয়ে কথাবার্তা হয়ত অফিসিয়াল হবে না, তাই মজার গল্প করুন, পুরনো স্মৃতি নিয়ে কথা বলুন। একে অপরের প্রতি কখনো শ্রদ্ধা হারাবেন না।

পুরাতন যাবে, নতুন আসবে: আপনি বেশ অনেকদিন ধরেই ব্যবসা করছেন। কাজেই নানা ধরনের মানুষের সাথে আপনার পরিচয় হয়েছে, ওঠাবসা হয়েছে। এদের কাছ থেকে ভালো-মন্দ অনেক কিছুই বুঝেছেন, শিখেছেন আপনি। তাই পুরনো জায়গায় যেখানে যেখানে কাজ করতে গিয়ে আপনার সমস্যা হয়েছে, নতুন জায়গায় নতুনভাবে নিশ্চয়ই সেই ভুলগুলো আপনি আর করবেন না। সব সময় পুরনোকে বিদায় দিয়ে এভাবেই নতুনকে স্বাগত জানাতে হয়। আর এই ব্যাপারগুলো আপনার কাজ করার পথকে আরও বেশি মসৃণ করে তোলে।

More News Of This Category