1. [email protected] : editorpost :
  2. [email protected] : jassemadmin :

যুক্তরাষ্ট্রে আরো ৮ ওষুধ বিক্রির সুযোগ পেল বেক্সিমকো ফার্মা

যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে আরো আটটি ওষুধ বিপণনের সুযোগ পেল বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড। এ লক্ষে মসুইস ওষুধ জায়ান্ট নোভারটিসের কোম্পানি স্যান্ডোজ ইনকরপোরেটেডের সঙ্গে সম্প্রতি এ-সংক্রান্ত একটি চুক্তি সই হয়েছে।

এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বেক্সিমকো ফার্মা কর্তৃপক্ষ জানায়, ২০১৫ সালের জুনে দেশের প্রথম কোম্পানি হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে ওষুধ রফতানির অনুমোদন পায় তারা। দেশটির ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (এফডিএ) তাদের মানদণ্ডের ভিত্তিতে এখন পর্যন্ত বেক্সিমকো ফার্মা উৎপাদিত ছয়টি ওষুধকে স্বীকৃতি দিয়েছে।

এর মধ্যে চারটি ওষুধ বাংলাদেশ থেকে রফতানি করছে কোম্পানিটি। আরো দুটি ওষুধ বিপণনে চূড়ান্ত অনুমোদন পাওয়ার অপেক্ষায় রয়েছে তারা।

সম্প্রতি অপ্রকাশিত দামে স্যান্ডোজের কাছ থেকে এফডিএ অনুমোদিত আরো আটটি জেনেরিক ওষুধ উৎপাদন ও বিপণনের স্বত্ব কিনে নিয়েছে তারা। সব মিলিয়ে মার্কিন বাজারে ১৪টি ওষুধ বিপণনের অনুমোদন লাভ করল বাংলাদেশের ওষুধ কোম্পানিটি।

স্যান্ডোজের সঙ্গে চুক্তি সম্পর্কে বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নাজমুল হাসান এমপি বলেন, বিশ্বে জেনেরিক ওষুধ উৎপাদন ও বিপণনের অন্যতম প্রধান প্রতিষ্ঠান স্যান্ডোজের কাছ থেকে এই আট ওষুধের স্বত্ব অর্জন যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে আমাদের অবস্থানকে আরো শক্তিশালী করবে।

এ অর্জন দেশের ওষুধ শিল্পের বিকাশে গুণগত পরিবর্তন আনবে। তিনি আরো বলেন, এ চুক্তির ফলে ভবিষ্যতে আমাদের রফতানি আরো বাড়বে। বৈদেশিক মুদ্রা আয় করার মাধ্যমে বেক্সিমকো ফার্মা দেশের অর্থনীতিতে আরো গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখতে পারবে।

বেক্সিমকো ফার্মা ২০১৬ সালের আগস্টে বাংলাদেশের প্রথম ওষুধ কোম্পানি হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রে ওষুধ রফতানি করে। কোম্পানিটি বর্তমানে ৫০টির বেশি দেশে ওষুধ রফতানি করছে।

মার্কিন এফডিএর পাশাপাশি ইউরোপীয় ইউনিয়ন, কানাডাসহ বিশ্বের নেতৃস্থানীয় ওষুধ নিয়ন্ত্রকদের স্বীকৃতি রয়েছে তাদের। আর ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) পাশাপাশি লন্ডন স্টক এক্সচেঞ্জের অল্টারনেটিভ ইনভেস্টমেন্ট মার্কেটেও কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন হয়।

More News Of This Category