1. [email protected] : editorpost :
  2. [email protected] : jassemadmin :

রোজায় পেটে গ্যাস?

রোজায় সূর্যোদয় থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত পানাহার থেকে বিরত থাকতে হয়। এসময় সবাই কমবেশি যে সমস্যায় পড়ে তা হলো অ্যাসিডিটি বা গ্যাসের সমস্যা। কখনো কখনো সমস্যাটি বেশ অস্বস্তিতেই ফেলে দেয়। সুস্থ দেহে রোজা রাখতে চাইলে সেহরি ও ইফতারের খাবারে কিছুটা নিয়ম মেনে চলা অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। কেননা ইফতার ও সেহরির খাবারের উপরেই নির্ভর করবে আপনার সারাদিনের সুস্থতা।

রোজার সময় গ্যাসের সমস্যার মূল কারণ হিসেবে ধরা হয় ইফতারিতে ভাজাপোড়া খাওয়া এবং পর্যাপ্ত পরিমাণে পানি না খাওয়াকে। গ্যাসের ব্যথার কারণে রোজা ভেঙে ফেলতে বাধ্য হন। কেউ কেউ অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে পর্যন্ত ভর্তি হন। অ্যাসিডিটি জনিত নানা সমস্যা দূর করতে ইফতারের সময় কিছু খাবার খাওয়া যেতে পারে।

আপেল সাইডার ভিনেগার – এটি কেবল দাঁতের জন্যই ভালো না, স্টোমাক ব্লোটিংয়ের জন্য সেরা প্রাকৃতিক সলিউশন এটি। এক গ্ল‍াস উষ্ণ পানিতে দুই চা চামচ ভিনেগার মেশান। খ‍ালি পেটে খেলে পেটে গ্যাস জমবে না। আনারস – আনারস প্রাকৃতিক উপায়ে খাদ্য ভেঙে হজম প্রক্রিয়াকে সহজ করে। সবজির রস – টাটকা সবুজ উপাদান যেমন- শাক, শসা, লেটুস দিয়ে তৈরি রস গ্যাস হ্রাস করে।

আদা – পেট খারাপ হলে আদার রস খাওয়া যেতে পারে। এটি পাকস্থলীকে শান্ত রাখে। কাঁচা মধু – জনপ্রিয় ঘরোয়া সমাধান। পেটে বেশি গ্যাস হলে এক টেবিল চামচ কাঁচা মধু খান।দারুচিনি – দারুচিনি পরিপাক প্রক্রিয়ায় চর্বি বিপাকে সাহায্য করে। ফলে শরীরের অতিরিক্ত গ্যাস অপসারণ করে। মৌরি – পেট ও অন্ত্রের প্রদাহ কমায় এবং পুষ্টির সঠিক শোষণ নিশ্চিত করে। পুদিনাপাতা – প্রায় সবখানেই ইফতারে এ উপাদানটির উপস্থিতি থাকে। খাবারের সঙ্গে খান বা কাঁচা পুদিনাপাতা একটু চিবিয়ে নিন। ভালো বোধ করবেন।

সেহেরিতে যা খাবেন না : সেহরিতে এমন খাবার খাওয়া উচিৎ যা থেকে গ্যাসের কোনো ভয় থাকবে না।

ডিম- ডিম অনেক পুষ্টিকর একটি খাবার যেটি শরীরে প্রয়োজনীয় প্রোটিন, ভিটামিন পূরণ করে থাকে। কিন্তু রোজার রাতের সেহরিতে এই ডিমের কোনো রান্না তরকারি একেবারে খাবেন না। কেননা ডিম খেলে আপনার পেটে গ্যাস তৈরি হতে পারে যা সারাদিনই ডিমের গন্ধযুক্ত ঢেকুরের সৃষ্টি করবে। ফলে আপনি রোজা রেখে অস্বস্তি বোধ করবেন। অসুস্থ হয়ে যাবেন। তাছাড়া হুট করে ব্লাড প্রেসারও বেড়ে যেতে পারে।

ডাল– আমাদের দেশে ভাতের সাথে ডাল থাকবেই। কিন্তু সেহরিতে কখনই ডাল জাতীয় খাবার খাবেন না। বিশেষ করে ডালভুনা, মুগ বা বুটের ডাল। খেতে চাইলে মসুর ডাল পাতলা করে খান। কেননা ডাল খালি পেটে প্রচুর গ্যাস তৈরি করে।

খিচুড়ি– খিচুরি অত্যন্ত গরম একটি খাবার যা শরীরকে গরম করে তোলে। অনেকের আবার পেটের সমস্যাও তৈরি করে। তাই সেহরির রাতে কখনই এই গরম খাবারটি খাবেন না। পেট বেশি গরম হলে অসুস্থ হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। এছাড়া তেলযুক্ত খাবার, লেবু, কোল্ড ড্রিংকস, ফাস্টফুড জাতীয় খাবার খেতেও বিরত থাকতে হবে। এই খাবার গুলি খুব দ্রত গ্যাস তৈরি করে।

তথ্যসূত্র: ইন্টারনেট।

More News Of This Category