1. [email protected] : editorpost :
  2. [email protected] : jassemadmin :

শৃঙ্খলার অভাবে লাইফে ব্যর্থতা আসে

team building events

যার মধ্যে শৃঙ্খলা নেই তার জীবনে ব্যর্থতা অনিবার্য। যে কোনও ধরনের সাফল্যের জন্য আপনাকে সুশৃঙ্খল হতে হবে। আপনি পড়াশুনায় ভালো করতে চান, আপনাকে নিয়মিত পড়তে হবে। ক্যারিয়ারে উন্নতি করতে চাইলে আপনাকে নিয়মিত গুছিয়ে কাজ করতে হবে। আধ্যাত্মিক সাফল্য চান, আপনাকে ধর্মের নিয়ম সুশৃঙ্খল ভাবে মেনে চলতে হবে। শৃঙ্খলার কোনওই বিকল্প নেই।

যার মধ্যে এই জিনিসটার অভাব আছে, সে কোনও কাজই মন লাগিয়ে দীর্ঘ সময় ধরে করতে পারে না। যদি আপনি ঠিক করেন সকাল ৯টা থেকে ১২টা পর্যন্ত প্রতিদিন পড়াশুনা করবেন – তবে যে কোনও মূল্যে আপনাকে তা করতে হবে। রুটিন ব্রেক করা যাবে না।

যদি নিজের বা কাছের কোনও মানুষের বিপদ হয়, বা কাউকে সাহায্য করার প্রয়োজন হয় – তাহলে হয়তো রুটিন থেকে সাময়িক ভাবে বের হতে পারেন। সেটা শুধুমাত্রই ইমার্জেন্সীর কারণে। কিন্তু খেলা দেখা, আড্ডাবাজি – এই ধরনের অপ্রয়োজনীয় কাজের জন্য যদি নিয়মিত ভাবে নিজের রুটিন ব্রেক করতে থাকেন – তাহলে কিছুতেই সফল হতে পারবেন না।

সুশৃঙ্খল মানুষের প্রধান গুণ হল সময়ের কাজ সময়ে করা। পৃথিবীর সব সফল মানুষ সময়ের মূল্য বোঝেন। আপনি যদি সময়কে মূল্য না দেন, তবে সময়ও আপনাকে মূল্য দেবে না। আলস্য, ঢিলেমি, কাজ ফেলে রাখা – এগুলো সাফল্যের সবচেয়ে বড় শত্রু। একজন সুশৃঙ্খল মানুষের মাঝে এসব কখনওই থাকতে পারবে না।

সাফল্যের জন্য যখন যেটা করা প্রয়োজন – সেটা তখনই করুন। নিজের ওপর নিয়ন্ত্রণ আনুন। এই নিয়ন্ত্রণ একবারে আসে না। ধীরে ধীরে অনুশীলনের মাধ্যমে এটা রপ্ত করতে হয়। অনেক মানুষ বিশ্বাস করে যে, আত্ম নিয়ন্ত্রণ ও শৃঙ্খলা একটি জন্মগত গুণ। যার মধ্যে এটা নেই – সে এটা অর্জন করতে পারবে না। এই বিশ্বাসটি দারুন ক্ষতিকর। যতক্ষণ কারও মধ্যে এই বিশ্বাস থাকবে – ততক্ষণ সে নিজেকে বদলাতে পারবে না।

কাজেই, প্রথমে দৃঢ় ভাবে বিশ্বাস করুন যে, আপনি চাইলে নিজেকে সুশৃঙ্খল করতে পারবেন। এটার জন্য প্রথমেই সব কাজ সময়মত করার দরকার নেই। প্রতিদিন যে কোনও একটি কাজ ঠিক করুন, যেটা আপনি যে কোনও মূল্যে সময়মত করবেন। এটি কিছুদিন প্রাকটিস করে, তারপর কাজের পরিমান বাড়ান। প্রয়োজনে কখন করবেন – তা লিখে রাখুন। এভাবে অনুশীলন করতে থাকলে একটা সময়ে গিয়ে আপনি সব কাজই সময়মত করতে পারবেন।

More News Of This Category