1. [email protected] : editorpost :
  2. [email protected] : jassemadmin :

৩০ হাজার হেক্টর জমিতে ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল!

বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির পথকে মসৃণ করার লক্ষ্যে সব মিলিয়ে ৩০ হাজার হেক্টর জমির ওপর ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল চালু হতে যাচ্ছে। এই ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল দ্বারা আগামী ১৫ বছরের মধ্যে ১০ মিলিয়ন অর্থাৎ ১ কোটি মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টি করাই এখন মূল লক্ষ্য।

বর্তমানে বাংলাদেশে নারী-পুরুষের অনুপাত প্রায় সমান। কিন্তু এই অনুপাত অনুযায়ী দেশে নারী উদ্যোক্তাদের সংখ্যা পর্যাপ্ত নয়। নারীদের ব্যবসাক্ষেত্রে পুরুষের তুলনায় পিছিয়ে থাকার জন্যও সুস্পষ্ট কারণ আছে। আমাদের জনসংখ্যার প্রায় অর্ধেক নারীসমাজ প্রায়ই এমন সব বাধার সম্মুখীন হয়, যা ব্যবসা শুরুর আগেই তার অনাগ্রহের সবচেয়ে বড় কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

নারীদের ব্যবসায়ী হওয়ার প্রতি সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গি। সঠিক স্থানে জমি প্রাপ্তি। গ্যাস, বিদ্যুৎ, পানির লাইন প্রাপ্তিতে বাধা। যোগাযোগ সুবিধার অপর্যাপ্ততা।

অর্থাৎ স্বাভাবিকভাবেই নারীরা যদি সামাজিক ভুল দৃষ্টিভঙ্গিকে পাল্টে দেওয়ার মতো একটি সুযোগ পান, তাহলে দেশের তৃণমূল পর্যায় থেকেও অনেক নারী উদ্যোক্তা উঠে আসবেন। অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলোতে নারীদের জন্য বিশেষভাবে ১০ শতাংশ জমি বরাদ্দ রাখা হয়েছে অর্থাৎ মোট ৩০০০ হেক্টর জমিতে দেশের নারী উদ্যোক্তাদের একক আধিপত্য থাকবে; এবং বাকি ২৭০০০ হেক্টর জমিতেও তাঁদের সমান অংশগ্রহণ নিশ্চিত করা হয়েছে।

নারীদের উদ্যোক্তা হওয়ার সুযোগ আছে এবং তা কাজেও লাগানো উচিত। এখন একজন আগ্রহী নারী, যিনি একই সঙ্গে চ্যালেঞ্জ গ্রহণের মানসিকতা রাখেন, দূরদৃষ্টিসম্পন্ন, বিচক্ষণ কিন্তু প্রতিষ্ঠিত উদ্যোক্তা নন অর্থাৎ উদ্যোক্তা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার চেষ্টা করছেন, তাঁর কী কী করণীয়?

অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলোর অবস্থান বাংলাদেশজুড়ে। একেক অঞ্চল একেক ধরনের ব্যবসার জন্য ভালো। ক্ষেত্র অনুযায়ী জ্ঞান এবং দক্ষতার জায়গাটি ভিন্ন ভিন্ন রকমের হয়। ছোট একটি উদাহরণ দিয়ে বিষয়টি পরিষ্কার করি। যিনি মিরসরাই অঞ্চলে ব্যবসা করবেন, তাঁর যে ধরনের কর্মী বাহিনী, দক্ষতা, পণ্য প্রয়োজন, তার সঙ্গে যিনি নাফ ইকো-ট্যুরিজম পার্ক অঞ্চলে ব্যবসা করবেন, তাঁর পরিকল্পনা কখনোই মিলবে না।

হ্যাঁ, উভয়েই লক্ষ্যে অবিচল, চ্যালেঞ্জ নিতে প্রস্তুত, কিন্তু বাংলাদেশে ইকো-ট্যুরিজমের চ্যালেঞ্জ আর লাইট ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের চ্যালেঞ্জ এক নয়। অর্থাৎ, ব্যবসা করার জন্য নিজের আগ্রহের জায়গাটা আগে নির্বাচন করতে হবে। এটার ওপর প্রাথমিক মূলধনের পরিমাণ, প্রশিক্ষণ ইত্যাদি নির্ভর করবে।

প্রতিটি ব্যবসার জন্যই নির্দিষ্ট পরিকল্পনা প্রয়োজন। একটা ভালো ‘বিজনেস মডেল’ না থাকলে ব্যবসা টিকিয়ে রাখা অসম্ভব। আর বিজনেস মডেলেও সময় এবং প্রতিযোগিতার ওপর ভিত্তি করে পরিবর্তন আবশ্যক। একজন উদ্যোক্তা হিসেবে কিছু জিনিস সব সময় মাথায় রাখতে হবে:

প্রতিযোগী পরিবেশ। প্রতিযোগীদের ব্যবসার কৌশল। টেকসই পণ্য/সেবা। বাজার গবেষণা। নিজস্ব শক্তি এবং দুর্বলতা চিহ্নিত করা। অভিজ্ঞদের মতামত নেওয়া। সময়ের পরিপ্রেক্ষিতে পরিবর্তিত সুযোগ কিংবা ঝুঁকি। ভোক্তা সন্তুষ্টি ইত্যাদি।

একজন উদ্যোক্তা হিসেবে নিজে কী করতে চাই, সেটা বুঝতে পারা খুব জরুরি। কেননা এর ওপর ভিত্তি করেই তিনি নিজের দক্ষতার উন্নয়ন ঘটাবেন। ব্যবসায় সফল হওয়ার জন্য এই দক্ষতার জায়গাটা খুব বেশি গুরুত্বপূর্ণ। একজন উদ্যোক্তা অনেক মানুষের কর্মসংস্থান করে থাকেন। সেই কর্মীদের দক্ষতার উন্নয়নের গুরুভার একজন উদ্যোক্তার কাঁধেই বর্তায়।

তাই সফল হওয়ার জন্য একজন নারীর প্রতিনিয়ত নিজের দক্ষতা উন্নয়নে কাজ করতে হয়। ব্যবসার ধরন অনুযায়ী বিভিন্ন টেকনিক্যাল ও নন-টেকনিক্যাল প্রশিক্ষণ নিতে হয়। তা না হলে প্রতিযোগিতাপূর্ণ পরিবেশে টিকে থাকা অসম্ভব।

নারী উদ্যোক্তারা ব্যবসা করার জন্য খুব সহজেই অল্প সুদে এসএমই ফাউন্ডেশন থেকে ঋণ নিতে পারেন। আর্থিক সাহায্য ছাড়াও বিভিন্ন বিষয়ে ট্রেনিং দিয়ে বিভিন্ন ধরনের সরকারি, বেসরকারি, আধা-সরকারি সংস্থা, এনজিওগুলো নিরলস কাজ করে যাচ্ছে। বাংলাদেশের মধ্যে এমন উল্লেখযোগ্য কিছু সংস্থা হলো

১. বাংলাদেশ ব্যাংক ২. এসএমই ফাইন্ডেশন ৩. বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশন (বিসিক) ৪. উইমেন অন্ট্রাপ্রেনার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ ৫. বাংলাদেশ ফেডারেশন অব উইমেন অন্ট্রাপ্রেনারস ৬. অ্যাসোসিয়েশন অব গ্রাসরুট উইমেন অন্ট্রাপ্রেনারস, বাংলাদেশ ৭. অন্ট্রাপ্রেনার ডেভেলপমেন্ট সেন্টার

৮. বাংলাদেশ উইমেন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি ৯. মাইডাস ফাইন্যান্সিং লিমিটেড ১০. চট্টগ্রাম উইমেন চেম্বার অব কমার্স ১১. এসএমই ফাউন্ডেশন ১২. কেয়ার বাংলাদেশ ১৩. আশোকা বাংলাদেশ

অঞ্চলভিত্তিক সুবিধা ছাড়াও দেশে নারী উদ্যোক্তা তৈরির জন্য এখন একটা নীরব আন্দোলন শুরু হয়েছে। বিএসএসের সর্বশেষ প্রকাশিত ২০১৮ সালের রিপোর্ট অনুযায়ী, আগামী ৫ বছরের মধ্যে ২৮,০০০ নারী উদ্যোক্তা তৈরি করা হবে বলে জানানো হয়েছে।

সর্বশেষ ২০১৮-১৯ সালের বাজেটটিও নারী উন্নয়নকেন্দ্রিক, যেখানে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে নারীর স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ নিশ্চিতের ওপর জোর দেওয়া হয়েছে। অতএব নারী উদ্যোক্তারা যদি এগিয়ে আসতে চান, এখনই সময়! লেখক: নির্বাহী পরিচালক, ইনোভেশন, ক্রিয়েটিভিটি ও অন্ট্রাপ্রেনারশিপ সেন্টার এবং সহকারী অধ্যাপক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

More News Of This Category